বেরোবিতে প্রমোশন আটকে রাখার প্রতিবাদে ভিসি অফিসের সামনে অবস্থান

481

বেরোবি প্রতিনিধি:

বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের আওয়ামীপন্থী শিক্ষকদের সংগঠন নীলদলের সভাপতি ড. নিতাই কুমার ঘোষের সাথে অসদাচরণ ও নীলদলের কয়েকজন শিক্ষকের আপগ্রেডেশন-প্রমোশন বোর্ড বার বার আটকে রাখার প্রতিবাদে উপাচার্য কার্যালয়ের সামনে অবস্থান কর্মসূচি পালন করেন নীলদলের সাধারণ সম্পাদক জুবায়ের ইবনে তাহের। সোমবার বেলা ৩টা থেকে প্রায় ৩টা ৪০ মিনিট পর্যন্ত উপাচার্য কার্যালয়ের সামনে অবস্থান করেন তিনি।

এসময় তিনি জানান, নীলদল করার কারণে সমাজবিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষক আনোয়ার হোসাইন, মার্কেটিং বিভাগের শিক্ষক নুরনবী, বাংলা বিভাগের শিক্ষক নিতাই কুমার ঘোষ এবং একাউন্টিং এন্ড ইনফরমেশন সিস্টেমস বিভাগের শিক্ষক আমির শরীফের আপগ্রেডেশন-প্রমোশন বোর্ড গঠন করা হচ্ছে না। এ বিষয়ে কথা বলতে আমরা নীলদলের সভাপতি এবং সাধারণ সম্পাদক উপাচার্য স্যারের সাথে দেখা করতে গেলে তিনি আমাদের হাত ধরে দরজা পর্যন্ত বের করে দিয়ে ‘আল্লাহ হাফেজ’ বলেন। আমাদের কথা না শুনেই আমাদেরকে এভাবে বের করে দেয়ায় আমরা অপমানিত বোধ করি এবং এর প্রতিবাদে আমি এখানে অবস্থান নিয়েছি।

তিনি বলেন, আমরা নীলদল করি বলেই যোগ্যতা থাকা সত্ত্বেও আমাদের আপগ্রেডেশন-প্রমোশন বোর্ড হয় না। দীর্ঘদিন ধরে গণিত বিভাগের শিক্ষক ইসমাইল হোসেন নীলদল করার কারণে তার প্রমোশন বোর্ড হচ্ছিল না। অথচ নীলদল থেকে পদত্যাগ করার সাথে সাথেই তার বোর্ড গঠন করা হয়েছে।

নীলদল থেকে অনেককেই পদত্যাগ করতে বাধ্য করা হচ্ছে। পদত্যাগ করলেই তাদের আপগ্রেডেশন-প্রমোশন বোর্ড হচ্ছে। নীলদল করাই যদি আমাদের অপরাধ হয় তাহলে আমাদের বিচার করা হোক। তিনি আরো বলেন, শিক্ষকরা তাদের প্রাপ্ত মর্যাদা না পেলে মাটিতে বসাই শ্রেয়।

এদিকে, ঘটনাস্থলে শিক্ষক সমিতির সভাপতি গাজী মাজহারুল আনোয়ার, বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর ও প্রগতিশীল শিক্ষক সমাজের আহ্বায়ক আবু কালাম মো: ফরিদুল ইসলামসহ কয়েকজন এসে তাকে হাত ধরে ওঠানোর চেষ্টা করেন। পরে উপাচার্য তার সাথে সাক্ষাত করে বিষয়টি নিয়ে আলোচনার আশ্বাস দিলে তিনি সেখান থেকে উঠে উপাচার্যের কক্ষে প্রবেশ করেন।

এবিষয়ে উপাচার্য প্রফেসর ডক্টর নাজমুল আহসান কলিমউল্লাহ’র সাথে যোগাযোগের চেষ্টা করলে প্রক্টর আবু কালাম মো: ফরিদুল ইসলাম উপাচার্য কার্যালয়ে প্রবেশে বাধা দেন এবং সেখানে উপস্থিত কর্মরত সাংবাদিকদের বের করে দেন।

ক্যাম্পাসবার্তা ডটকম/এআরএ